ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ইয়াসমিন ট্র্যাজেডি

ইয়াসমিন ট্র্যাজেডি

August 24, 2016 - 8:21 AM

ইয়াসমিন ট্র্যাজেডির ২১তম বার্ষিকী আজ। ১৯৯৫ সালের এইদিনে দিনাজপুরে পুলিশী হেফাজতে ইয়াসমিনকে ধর্ষণ ও হত্যার মতো এক জঘন্য  ঘটনাটি ঘটে। এই ট্র্যাজেডির সূত্র ধরে দিনটি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবেও পালিত হয়ে আসছে।

 

সেদিন দিনাজপুরের ‘দশ মাইল’ নামক স্থানে পুলিশী হেফাজতে পৈশাচিকতার শিকার হয়েছিল কিশোরী ইয়াসমিন। ঘটনায় আগের রাতে দিনাজপুর শহরের রামনগরের বাসিন্দা ইয়াসমিন ঢাকা থেকে ঠাকুরগাঁওগামী কোচযোগে দশ মাইলে এসে নামে। এ সময় স্থানীয় দোকানিরা তাকে কোতয়ালী থানার টহল গাড়িতে উঠিয়ে দেয়। এরপর অসহায় কিশোরী ওই গাড়িতে থাকা পুলিশের পাশবিক লালসার শিকার হয়। কিছুক্ষণ পরই দশ মাইল থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে ইয়াসমিনের প্রায় বিবস্ত্র মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়।

 

এই পৈশাচিক ঘটনায় প্রতিবাদমুখর হয়ে ওঠে স্থানীয় মানুষ। উত্তাল প্রতিবাদ শুরু হয় দিনাজপুরে। ঘেরাও করা হয় কোতয়ালী থানা। ২৭ আগস্ট আহবান করা হয় গায়েবানা জানাজা। এই জানাজা অভিমুখী জনতার স্রোতে গুলিবর্ষণ করে পুলিশ। নিহত হয় ৭ জন নিরীহ মানুষ। এরপর বাঁধভাঙ্গা জোয়ারের মত ফুঁসে ওঠে জনতা। তারা পুলিশের ৪টি ফাঁড়ি, ৪টি গাড়ি, স্থানীয় ৪টি দৈনিক সংবাদপত্র অফিস, প্রেসক্লাব পুড়িয়ে দেয়। ভীতসন্ত্রস্ত পুলিশ বাহিনী আশ্রয় নেয় পুলিশ লাইনে। ২৮ আগস্ট থেকে দিনাজপুরে মোতায়েন করা হয় বিডিআর। ১২ সেপ্টেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া দিনাজপুরে গেলে জনগণ তাকে কালো পতাকা প্রদর্শন করে।

এই ন্যক্কারজনক ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের তদন্ত শেষে সিআইডি ১৯৯৬ সালের ১৪ মে পুলিশের এস আই মইনুল, কনস্টেবল সাত্তার, ড্রাইভার অমৃত লাল, কোতয়ালী থানার ওসি মাহাতাব উদ্দীন, এ এস আই জাহাঙ্গীর আলম, এ এস আই স্বপন চক্রবর্তী, এ এস আই মতিউর রহমান (ওসি ওয়াচ) এবং এসপি আব্দুল মোতালেবকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৬ (৪) এবং বাংলাদেশ দন্ডবিধি ২০১/৩ ধারায় চার্জশিট দাখিল করে। পরবর্তীতে একই বছরের ৬ জুন ইয়াসমিনের লাশের প্রথম ময়না তদন্তকারী ডাক্তার মোঃ মহসীনকে আসামি করে সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করা হয়। ১২৩ দিনের শুনানি এবং ৪৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামি মইনুল, সাত্তার এবং অমৃতর ফাঁসির আদেশ দিয়ে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হয় ’৯৭ সালের ৩১ আগস্ট। অন্য আসামিদের খালাস দেয়া হয়। হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্সে নিম্ন আদালতের রায় বহাল থাকে। আসামিরা সুুপ্রিম কোর্টে আপীল করলেও রায় বহাল থাকে। ২০০৪ সালের ১ সেপ্টেম্বর  আসামিদের মধ্যে এস, আই মাইনুল ও কনস্টেবল সাত্তারের ফাঁসি কার্যকর হয়। পরে ড্রাইভার অমৃত লালের ফাঁসিও কার্যকর করা হয়।

দিনাজপুর জেলা পরিষদ ইয়াসমিনের স্মৃতিকে ধরে রাখার জন্য দশ মাইল মোড়ে একটি স্মৃতি ভাস্কর্য স্থাপন করে এবং তার পাশে ইয়াসমিনের নামে একটি পোষ্ট অফিস ও যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করেছে। ইয়াসমিন স্মরণে প্রতিবছর ২৪ আগস্ট বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে ‘নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস’ পালিত হচ্ছে।

ইয়াসমিন ট্র্যাজেডির ২১ বছরে এসেও নারী নির্যাতনের ভয়াবহ ঘটনা থেমে নেই। বিশ্বের অনেক দেশের মতো বাংলাদেশেও বেড়েছে নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা। বেড়েছে যৌন হয়রানি, ধর্ষণসহ, অপহরণের ঘটনা। নারী ও শিশু নির্যাতনের স্টিম রোলার থামিয়ে দেওয়া যায়নি। বরং দিন দিন ভয়াবহ উদাহরণ হয়ে একেকটি নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা আমাদের সামনে উপস্থাপিত হচ্ছে।

একদিকে, নারীরা এগিয়ে যাচ্ছে, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে অন্যদিকে নারী ও শিশুদের অত্যাচারের, নির্যাতনের ধরন পাল্টে যাচ্ছে। আমাদের সমাজে অস্থিরতা বেড়ে গেছে। মূল্যবোধের অবক্ষয় হচ্ছে, ফলে অতি সামান্য বিষয়কে কেন্দ্র করে তাদের নির্মম অত্যাচারের শিকার হতে হচ্ছে। ধর্ষণ, পিটিয়ে হত্যার মত ঘটনা অহরহ ঘটছে।

দেশে যেভাবে নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনার বিভৎস রূপ প্রদর্শিত হচ্ছে, বেড়েছে যৌন হয়রানি, ধর্ষণসহ, অপহরণের ঘটনা- তাতে আইনের কঠোর প্রয়োগের বিকল্প নেই।

আপনার মতামত জানানঃ