ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   ‘আর চোলাই মদ বানাব না’ ২৫ মাদক ব্যবসায়ীর আত্যসমার্পন

‘আর চোলাই মদ বানাব না’ ২৫ মাদক ব্যবসায়ীর আত্যসমার্পন

আগস্ট ৩১, ২০২০ - ৯:৪৫ অপরাহ্ণ

সুনামগঞ্জের দুর্গম জনপদ শাল্লা উপজেলার চিকাডুবি গ্রামের ২৫ মাদক ব্যবসায়ী চোলাই মদ তৈরি উপকরণ স্বেচ্ছায় তুলে দিয়েছে পুলিশের হাতে।

সোমবার (৩১ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের চিকাডুবি ও বল্লভপুর গ্রামের চোলাই মদ বিক্রেতারা এ কাজ করেন।

তারা হলেন- রমজান আলী, রইছ মিয়া,আক্তার হোসেন, রিয়াজ মিয়া, হিরণ মিয়া, মোশাহিদ মিয়া, হামিদ মিয়া, সুলতান মিয়া, জুয়েল মিয়া, আব্দুল গফুর, জমির হোসেন, আহাদ নূর,কামাল হোসেন, আবু তাহের, সুজন মিয়া, সুহেল মিয়া, নিয়াজ মিয়া, হৃদয় মিয়া, নয়ন মিয়া, তাজ উদ্দিন, হেলাল মিয়া, নাসির উদ্দিন, মোহন মিয়া, আবু সুফিয়ান।

এ ২৫ জন চোলাই মদ বিক্রেতা মদ তৈরি উপকরণ প্লাস্টিকের ড্রাম ও টিনের চুলা তুলে দেন শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সঞ্জুর মোর্শেদের কাছে। বিকেলে রমজান মিয়ার বাড়িতে পুলিশের হাতে মদ তৈরির উপকরণ তুলে দেয়া হয়।

স্থানীয়রা জানান, চিকাডুবি ও বল্লভপুর গ্রামের কিছু সংখ্যক লোক কয়েক দশক ধরে চোলাই মদ তৈরি ও বিক্রির ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন। দুর্গম হাওর এলাকায় বিকল্প কর্মসংস্থানের কোনো সুযোগ সুবিধা না থাকায় চোলাই মদ তৈরি করে তারা পেশা হিসেবে বেছে নিয়ে ছিলেন।

চোলাই মদ বিক্রেতা বাচ্চু মিয়া বলেন, স্থানীয় একটি প্রতিবন্ধী সংগঠনের ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি। তাদের গ্রামের লোকজন বিকল্প কর্মসংস্থানের অভাবে দীর্ঘদিন চোলাই মদ তৈরি সঙ্গে জড়িত ছিলেন। কিন্তু শাল্লা থানার বর্তমান ওসি স্যারের প্রেরণায় আজ থেকে চোলাই মদ তৈরি থেকে বিরত থাকবো।

রিয়াজ মিয়া বলেন, আমরা গরিব মানুষ, হাওর এলাকায় কাজকর্ম পাওয়া যায় না। তাই বেঁচে থাকার তাগিদে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ি। এখন থেকে আর কোনো দিন চোলাই মদ বানাবো না।

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, এ থানায় যোগদানের পর থেকে দুর্গম হাওর বেস্টিত শাল্লা উপজেলাকে মাদকমুক্ত করার প্রত্যয়ে কাজ শুরু করেছি। এ কাজের ধারাবাহিকতায় বিপুল সংখ্যক চোলাই মদ বিক্রেতা আজ তাদের উপকরণ পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে। তাদেরকে ভালো পথে ফিরিয়ে আনতে প্রশাসনের পাশাপাশি সমাজের সচেতন লোকজনদেরকেও এগিয়ে আসতে হবে।

আপনার মতামত জানানঃ