ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   আর্মেনিয়া-আজারবাইজান যুদ্ধে শতাধিক নিহত

আর্মেনিয়া-আজারবাইজান যুদ্ধে শতাধিক নিহত

সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০ - ৮:২১ অপরাহ্ণ

বিতর্কিত নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চলে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের সংঘাতে শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে সামরিক বাহিনীর সদস্যের পাশাপাশি বেসামরকি নাগরিকও রয়েছে।

পাহাড় বেষ্টিত অঞ্চলটি আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের। ১৯৯৪ সালের যুদ্ধের পর থেকে আর্মেনিয়া এটি নিয়ন্ত্রণ করছে।

স্বঘোষিত নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রোববার থেকে এ পর্যন্ত তাদের ৮৪ জন সামরিক সদস্য নিহত হয়েছে। হতাহতের তালিকায় বেসামরিক নাগরিক রয়েছে বলেও জানানো হয়।

আজাবাইজান সামরিক ক্ষয়ক্ষতির বিষয় প্রকাশ করেনি। তবে তাদের ৭ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে বাকু।

তিনদিন আগে আজারবাইজান এবং আর্মেনিয়ার মধ্যে সংঘাত শুরু হয়। এখন এ সংঘাত নাগরনো-কারাবাখে সীমিত থাকছে না বলে মনে ধারণা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার আর্মেনিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, আর্মেনিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় শহর ভারদেনিসে যাত্রীবাহী বাসে ড্রোন হামলা চালিয়েছে আজারবাইজান। তবে হতাহতের কোনো তথ্য দেয়নি সংশ্লিষ্টরা।

এর আগে আজারবাইজান জানায়, দেশটিতে আর্মেনিয়ার গোলা হামলায় দু’জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। এর আগের দিন আর্মেনিয়ার হামলায় একই পরিবারের ৫ জন নিহত হয়।

২০১৬ সালের পর তীব্র সংঘাতে জড়িয়েছে দু’পক্ষ। আর্মেনিয়া-আজারবাইজানের সংঘাত নিয়ে মঙ্গলবার নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের কথা রয়েছে।

আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান উভয়ই সেনা সমাবেশের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি এলাকা সামরিকীকরণ করেছে। সংঘাতের জন্য একে অপরকে দায়ী করছে।

কৌশগতভাবে গুরুত্বপূর্ণে কশেশাস অঞ্চলের সংঘাতে অন্যদেশ সরাসরি জড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

তুর্কি ইতোমধ্যে সরাসরি আজারবাইজানকে সমর্থন দিয়েছে। অন্যদিকে আর্মেনিয়ায় রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটি রয়েছে। যদিও দ্রুত যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছে মস্কো।

নাগরনো-কারাবাখ-মূল বিষয়গুলো:

*পাহাড়বেষ্টিত অঞ্চলটি ৪ হাজার ৪ বর্গকিলোমিটার (১ হাজার ৭০০ বর্গমাইল।)

*তুর্কি মুসলিম এবং খ্রিস্টান আর্মেনিয়োরা ঐতিহ্যগতভাবে বসবাস করে।

*সোভিয়েত শাসনামলে আজারবাইজানের স্বায়ত্বশাসিত্ব অঞ্চল ছিল।

*আন্তর্জাতিকভাবে আজারবাইজানের অঞ্চল। যার বেশিরভাগ বাসিন্দা আর্মেনিয়ো আদিবাসী।

*১৯৮৮-১৯৮৪ সালের যুদ্ধে প্রায় ১০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়। নিহত হয় অন্তত ৩০ হাজার।

*ওই অঞ্চলের বিচ্ছিন্নতাবাদী আজারবাইজানের কিছু এলাকা জবরদখল করেছে।

*১৯৯৪ সালে যুদ্ধবিরতির পর থেকে সেখানে অচলাবস্থা বিরাজ করছে।

*তুরস্ক সরাসরি আজারবাইজানকে সমর্থন দিয়েছে। আর্মেনিয়ায় রুশ সামরিক ঘাঁটি রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ