ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   আমদানির অনুমতি ১ লাখ টন লবণ

আমদানির অনুমতি ১ লাখ টন লবণ

September 25, 2016 - 3:01 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : এক লাখ টন সাধারণ (বোল্ডার) লবণ আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রোববার এক সার্কুলারে এ অনুমতি দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) এবং বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নিবন্ধনকৃত আমদানিকারকরা লবণ আমদানির জন্য ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি অফিসের চিফ কন্ট্রোলারের কাছে আবেদন করতে পারবেন।

কোরবানির পশুর চামড়া সংরক্ষণ ও বাজারে লবণের সরবরাহ বৃদ্ধির জন্য সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এর আগে চলতি মাসের প্রথম দিকে শিল্প মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে সুপারিশ করে।

এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, লবণের মৌসুম শেষ হয়ে যাওয়ায় এখন আমদানি করলে চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না। এ কারণেই আমদানির অনুমতি দেওয়ার চিন্তা করা হচ্ছে।

দেশে ভোজ্য লবণ আমদানি নিষিদ্ধ। তবে উৎপাদনে ঘাটতি হলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আমদানির অনুমতি দিয়ে থাকে। এ বছর দেশে চাহিদা অনুযায়ী লবণ উৎপাদিত হয়নি। বছরজুড়েই অপরিশোধিত লবণের দাম চড়া ছিল। ফলে খুচরা বাজারে ব্যাপকভাবে বেড়েছে লবণের দাম।

বাজারে এখন ভ্যাকুয়াম ইভাপোরেশন পদ্ধতিতে পরিশোধিত লবণ কেজিপ্রতি ৩৪-৩৫ টাকা, মেকানিক্যাল পদ্ধতিতে পরিশোধিত লবণ ৩০-৩২ টাকা ও সাধারণ লবণ ২০-২২ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) হিসাবে, এক বছর আগের তুলনায় লবণের দাম এখন ২৮ শতাংশ বেশি। পরিশোধনকারী কোম্পানিগুলো জানায়, এখন বাজারে প্রতি বস্তা (৭৫ কেজি) অপরিশোধিত লবণের দাম ৮০০ টাকার কাছাকাছি, যা সাধারণত ৪০০ টাকার নিচে থাকত। দাম বাড়ার কারণ হিসেবে চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম হওয়াকে দায়ী করছে কোম্পানিগুলো।

গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ১ লাখ টন লবণ আমদানির অনুমতি দিয়েছিল। তখন দুই দিনেই ২ লাখ ৩৫ হাজার টন লবণের ঋণপত্র খুলে ফেলেন ৪৫ জন আমদানিকারক। এরপর সরকার নতুন কোনো ঋণপত্র খুলতে দেয়নি। পরে আমদানিকারকদের সমান হারে, অর্থাৎ ২ হাজার ২২২ টন করে লবণ আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়।

আপনার মতামত জানানঃ