ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রযুক্তি   »   আগ্নেয়গিরি নাকি বাতিঘড়

আগ্নেয়গিরি নাকি বাতিঘড়

September 1, 2016 - 10:27 AM

ডেক্স : ইজালকো আগ্নেয়গিরি। অন্য সব আগ্নেয়গিরি থেকে এটি একেবারেই আলাদা লাভার কারণে। এই আগ্নেয়গিরির রঙ্গিন ও চিত্তাকর্ষক লাভার গল্প অনেকেই হয়তো শুনে থাকবেন। অনেকের হয়তো সুযোগ হয়েছে উত্তপ্ত লাভা থেকে লাল আভা বিচ্ছুরিত হচ্ছে এমন দৃশ্য দেখার। এটি যেমন নয়নাভিরাম আবার ভীতিকরও বটে!

লাভা থেকে যে আলো তৈরি হয় তা আগ্নেয়গিরির ছায়ার সঙ্গে মিশে অদ্ভুত এক আলো তৈরি করে। এবং এই আলো আগ্নেয়গিরির পাহাড় চূড়া স্পর্শ করে। যে কারণে বহুদূর থেকেই তা দেখা যায়। এমনিতেই আজালকোর রিপরীতে বিশাল আকারের সমভূমি রয়েছে। সমুদ্র উপকূলও সন্নিকটে। ফলে জল এবং স্থল উভয় জায়গা থেকেই আলো চোখে পড়ে। বিশেষ করে এই আলো সমুদ্রের জাহাজগুলোর পথ নির্দেশনা দেয়। সে কারণে এল সালভাদরের এই আগ্নেয়গিরি প্রশান্ত মাহাসাগরীয় বাতিঘর হিসেবে পরিচিত।

এই আগ্নেয়গিরি সৃষ্টি হবার দুটি বহুল প্রচলিত গল্প আছে। গল্পের উভয় সংস্করণেরই একটা কমন দিক হলো এর সৃষ্টি হয়েছিল ইয়ামাটেপেক আগ্নেয়গিরির পাদদেশের একটি ফাটল থেকে। আর সবচেয়ে বেশি প্রচলিত গল্প হলো সান্তানা আগ্নেয়গিরি থেকে এর সৃষ্টি। ইজালকো আগ্নেয়গিরির দুটো সংস্করণের প্রথমটির সৃষ্টি প্রায় ১৭৭০ সালে। এ সময় একটি বৃহৎ ভয়ানক অগ্ন্যুৎপাত থেকে ইজালকো আগ্নেয়গিরির শঙ্কু তৈরি হয়।

ইজালকো আগ্নেয়গিরির অপর সংস্করণটি ঘটেছিল ১৭২২ সালে এবং সেটা তৈরি হতে কয়েকবছর সময় লেগেছিল। এই সংস্করণ ইয়ামটেপেক আগ্নেয়গিরির পাদদেশে একটি ফাটল তৈরি করে, যা প্রবাহিত করেছে লাভা, পাথর ও ছাই। সময়ের আবর্তনের সাথে সাথে এই লাভা আরো ঘনীভূত হয়েছে এবং ছোট শঙ্কু তৈরি করেছে। এর সঙ্গে অধিক থেকে অধিকতর লাভা ও ছাইয়ের ধারাবাহিক নিষ্কাশন ইজালকো আগ্নেয়গিরি তৈরিতে ভূমিকা রাখে।

তবে নির্দিষ্ট করে কোনো দিন, তারিখ স্পষ্ট বা প্রতিষ্ঠিত করতে পারা যায় না যে ঠিক কখন এই আগ্নেয়গিরি তৈরি হয়েছিল। কিন্তু এর একটা সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা দাঁড় করানো যায়। এ প্রসঙ্গে একটি কৌতূহলী বর্ণনা এই যে, এখানে একটি হোটেল ছিল। সেখানে একজন পাহারাদারও নিযুক্ত ছিল। হোটেলটির অবস্থান ছিল পাহারের উপর, ইজালকো আগ্নেয়গিরির খুবই সন্নিকটে, যেটা সেরো ভার্দে নামে পরিচিত। সবচেয়ে মজার বিষয় হলো এই, যখনই হোটেলটি তৈরি করা শেষ হলো আগ্নেয়গিরিটি উদ্‌গিরণ কার্যক্রম বন্ধ করে দিল এবং এখন পর্যন্ত সেটা আর বিস্ফোরিত হয়নি।

বর্তমানে সাহসী আরোহীরা যারা আগ্নেয়গিরির জালামুখে হাঁটতে ভয় পান না তারা এই ইজালকো আগ্নেয়গিরি পরিদর্শন করেন। বর্তমানে বিশেষ করে উত্তর আমেরিকানরা এবং ইউরোপীয় গবেষকরা এখানে গবেষণা অথবা নিছক দুঃসাহসিক কোনো অভিযানের উদ্দেশ্যে আসে।

যদিও তাদের অনেক বিচক্ষণতার উপদেশ দেওয়া হয়। তারপরও অনেকে ইজালকো আগ্নেয়গিরিকে মাপতে চেষ্টা করেন। এবং এর উপর পদব্রজে ভ্রমণ করেন। যদিও এখানকার মাটি খুব আলগা ও বালুময়। সেইসঙ্গে ভূমি বাঁক নেওয়া যা ভ্রমণপিপাসু মানুষ ও দুঃসাহসী অভিযাত্রীদের ভীষণ আকৃষ্ট করে।

আপনার মতামত জানানঃ