ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   আগামী মার্চে স্বাধীনতা পুরস্কার, প্রস্তাব আহ্বান

আগামী মার্চে স্বাধীনতা পুরস্কার, প্রস্তাব আহ্বান

September 18, 2016 - 8:15 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদক ‘স্বাধীনতা পুরস্কার ২০১৭’ দেওয়ার জন্য যোগ্যদের নাম প্রস্তাব করার আহ্বান জানিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। আগামী বছরের মার্চে এই পদক বিতরণ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরই মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সব মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, মন্ত্রিসভার সদস্য ও সচিবদের চিঠি পাঠানো হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) এন এম জিয়াউল আলমের সই করা এই চিঠিতে, আগামী বছরের স্বাধীনতা পুরস্কারের জন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে মন্ত্রণালয় বা বিভাগের মনোনয়ন থাকলে তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠাতে বলা হয়েছে। আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রস্তাবনা গ্রহণ করবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী মন্ত্রী ও সচিবেরা ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নাম পাঠানোর পর প্রাথমিক বাছাই করে একটি তালিকা করা হবে। এরপর পদক কমিটির বৈঠকে এই তালিকা উঠবে। সেখান থেকে তালিকা যাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। তিনি এই তালিকায় সংযোজন বা বিয়োজন করতে পারবেন। এরপর মন্ত্রিসভার বৈঠকে তালিকাটি চূড়ান্ত হবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) এন এম জিয়াউল আলম বলেন, ‘সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে প্রস্তাবনা পাওয়ার পর তা যাচাই-বাছাইসহ স্বাধীনতা পুরস্কার-২০১৭ এর আনুষঙ্গিক সব কাজ চলতি বছরের মধ্যেই শেষ করা হবে। সব প্রক্রিয়া শেষ করার পর আগামী মার্চে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রশাসনিক উন্নয়ন ও সমন্বয়-২ শাখা গত ৩১ আগস্ট স্বাধীনতা পুরস্কার ২০১৭ বিতরণের বিষয়ে নীতিমালা ঠিক করে। পরবর্তীতে আনুষ্ঠানিকভাবে গত ১৫ সেপ্টেম্বর এ চিঠি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের উদ্দেশে ছাড়া হয় বলে জানা গেছে।

নীতিমালা অনুযায়ী, পুরস্কারপ্রাপ্তদের সংখ্যা কোনো বছর ১০ এর বেশি হবে না। তবে প্রধানমন্ত্রী চাইলে এই সংখ্যা বাড়াতে পারেন। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, চিকিৎসা, শিক্ষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, পল্লি উন্নয়ন, সমাজসেবা বা জনসেবা, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ, জনপ্রশাসন, গবেষণা ও প্রশিক্ষণ বা সরকারের নির্ধারিত অন্য কোনো ক্ষেত্রে অবদানের জন্য এই পুরস্কার দেওয়া যায়। প্রায় প্রতি বছর কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য জীবিতদের পাশাপাশি মরণোত্তর পুরস্কার দেওয়ার রীতিও আছে।

পুরস্কার হিসেবে মনোনীতদের ১৮ ক্যারেট মানের ৫০ গ্রাম স্বর্ণ দিয়ে তৈরি একটি পদক, পদকের একটি রেপ্লিকা, তিন লাখ টাকা ও একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হবে।

১৯৭৭ সালের ২৬ মার্চ দেশে প্রথমবারের মতো ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ দেওয়া হয়। সেই থেকে প্রতি বছর বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য পুরস্কারটি দেওয়া হচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ