ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   ‘অন্যদের উন্নয়ন দেখলে অসুস্থ হয়ে পড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র’

‘অন্যদের উন্নয়ন দেখলে অসুস্থ হয়ে পড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র’

জুলাই ২২, ২০২০ - ১:৪৮ অপরাহ্ণ
চেতনায় মুজিব পরিষদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। মোট নয় সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটির সদস্যদের নাম আজ বুধবার(২২/০৭/২০২০ইং) প্রকাশ করা হয়। কমিটিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্যগণ হচ্ছেনঃ সভাপতি – বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মোঃ কফিল উদ্দিন মোল্লা সহ-সভাপতি – বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেদ আলী সাধারণ সম্পাদক – বীর মুক্তিযোদ্ধা আলতাবুর রহমান চৌধুরী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আশরাফ হোসেন সাংগঠনিক সম্পাদক – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবুল হাসেম প্রচার সম্পাদক – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ শাহজাহান দপ্তর সম্পাদক – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সোবাহান খান নির্বাহী সদস্য – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল আসাদ সদস্য – বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ওকিল উদ্দিন

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অন্য দেশের উন্নয়ন দেখলে অসুস্থ হয়ে পড়ে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত কুই থিয়ানকাই। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) চীনের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম চায়না সেন্ট্রাল টেলিভিশনকে (সিসিটিভি) দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত কুই থিয়ানকাই বলেন, ‘হুয়াওয়ে আন্তর্জাতিক এবং চীনের স্থানীয় আইনকানুন মেনে চলে। তারা নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্য সব দেশের আইনকানুনের প্রতিও, যেসব দেশে তারা ব্যবসায় করে থাকে। তারা (হুয়াওয়ে) আন্তর্জাতিক আইন মেনে তাদের নিজস্ব প্রযুক্তি এবং পণ্যের মান উন্নয়ন করছে। তাদের কার্যক্রমে আমরা উৎসাহ দেই, সমর্থন করি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কি হয়েছে আমার বোধগম্য নয়। তারা হুয়াওয়ের উন্নয়নকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারছে না। তাদের অবস্থান সম্পূর্ণভাবে আইন এবং বাজার ব্যবস্থার রীতি-নীতির সঙ্গে সাঙ্ঘর্ষিক।’

সম্প্রতি হুয়াওয়েকে ৫-জি থেকে নিষিদ্ধ করে যুক্তরাষ্ট্র। চীনের এই উঠতি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে তাদের কর্মীদের যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা না দেয়ার ঘোষণা দেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। হংকং ইস্যুতে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অবণতি হতে থাকায় একের পর এক চীনা কোম্পানিকে নিষেধাজ্ঞার আওতায় নিতে চাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদেশগুলো।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, ‘আমি মনে করি প্রধান সমস্যা হচ্ছে মার্কিন কিছু রাজনীতিবিদের। তারা শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি বিশ্বে উন্নয়ন করুক, অন্যদের চেয়ে শক্তিশালী অবস্থানে যাক এটা চায়। এবং তারা চায় অন্য দেশের কোম্পানিগুলো প্রতিযোগিতায় মার্কিন কোম্পানিগুলোর পেছনে থাকুক। এর জন্য প্রয়োজনে তারা শক্তি প্রয়োগ করতেও রাজি। এটি কোনোভাবেই একটি দেশের পক্ষে ইতিবাচক দৃষ্টি ভঙ্গি হতে পারে না।’

আপনার মতামত জানানঃ