ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   অনূর্ধ্ব-১৬ দলের মেয়েদের ভোগান্তি : বাফুফের ব্যাখ্যা

অনূর্ধ্ব-১৬ দলের মেয়েদের ভোগান্তি : বাফুফের ব্যাখ্যা

September 8, 2016 - 2:47 PM

ক্রীড়া প্রতিবেদক : এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বে ‘সি’ গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ৪-০ গোলে হারায় বাংলাদেশের মেয়েরা।

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ এর মূলপর্ব নিশ্চিত করে ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফিরে তারা। কিন্তু একটি বেসরকারি টেলিভিশনের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে তাদের ভোগান্তির কথা। লোকাল বাসে বাড়ি পাঠানো হয় বাংলাদেশের নারী ফুটবলে ইতিহাস সৃষ্টি করা ময়মনসিংহের কলসিন্দুরের মেয়েদের।

প্রতিবেদন অনুযায়ী বাড়ি ফিরতে তাদের ভোগান্তির পাশাপাশি ইভ টিজিংয়েরও শিকার হতে হয়েছে। কিন্তু বিষয়গুলো অস্বীকার করে নিজেদের পক্ষে সাফাই গেয়ে ব্যাখ্যা দিয়ে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।

সেখানে তারা উল্লেখ করে, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকে কলসিন্দুরের মেয়েদের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মাইক্রো বাসে করে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু কলসিন্দুরের মেয়েরা নাকি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসে অস্বস্তি অনুভব করবে। তাই তারা সেটাতে যেতে রাজি হয়নি। তারপর ফুটবল ফেডারেশন তাদের ভালো মানের বাসে পাঠাতে চেয়েছিল।

কিন্তু ব্যাগ নিয়ে গাড়ী পরিবর্তনের ঝামেলার কারণে সেটাতেও যেতে রাজি হয়নি তারা। পাশাপাশি তারা নাকি বাফুফের কাছে এমন বাস চেয়েছে যেটা দিয়ে তারা বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছাতে পারবে। তাই ফুটবল ফেডারেশন মেয়েদের সুবিধা ও স্বস্তির কথা চিন্তা করে লোকাল বাসে মেয়েদের উঠিয়ে দিয়ে আসে। অবশ্য ফুটবল ফেডারেশন ভবন থেকে তাদের বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছে দিয়ে আসা হয়।

এরপর বাফুফের স্টাফরা তাদের বাবা-মা ও স্কুলের শিক্ষকদের ফোন করে জানিয়ে দেয় যে তারা বাসে উঠেছে। পাশাপাশি কখন গিয়ে তারা পৌঁছবে সেই সময়টাও জানিয়ে দেয়।

কিন্তু পথিমধ্যে মেয়েদের নিয়ে প্রতিবেদন করে একটি বেসরকারি টেলিভিশন। সেখাতে তাদের নানা সমস্যার কথা বলে মেয়েরা। কিন্তু ফুটবল ফেডারেশন তাদের ব্যাখ্যায় সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।

এ বিষয়ে সহকারী কোচ মাহবুবুর রহমান লিটু বলেছিলেন, ‘মেয়েরা বাড়ি যাওয়ার সময় ট্রেনযাত্রায় বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। আমরা ৫ সেপ্টেম্বর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে যোগাযোগ করেছিলাম। কিন্তু কোনো টিকিট পাইনি। তারপর এনা পরিবহনের বাসে করে তাদের বাড়ি পাঠানো হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। তবে এনা পরিবহনের বাস ময়মনসিংহ পর্যন্ত যায়। সেখান থেকে আরও প্রায় ৮০ কিলোমিটার দূরে ধোবাউড়া। তাই মেয়েরাই বলল, আমরা কোথাও নামব না, আমাদের সঙ্গে অনেক ব্যাগ রয়েছে। ঢাকা থেকে সরাসরি ধোবাউড়া গেলে আমাদের জন্য ভালো হয়। তারা এও বলেছে, এসি বাসে আমাদের বমি হয়। ফলে ধোবাউড়ার বাসে তাদের উঠিয়ে দিয়েছি আমরা। কয়েক বছর ধরে আমি ও কোচ ছোটন ভাই মিলেই মেয়েদের বাড়ি যাওয়ার ব্যাপারে সহায়তা করছি। আগের মতো এবারও একইভাবে গাড়িতে তাদের উঠিয়ে দিয়েছি আমরা।’

আপনার মতামত জানানঃ