ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইমপ্রধান সংবাদ   »   অনিয়ম ও দুর্নীতির শীর্ষে যশোর সমাজসেবা কার্যালয় তদন্তে দুদক

অনিয়ম ও দুর্নীতির শীর্ষে যশোর সমাজসেবা কার্যালয় তদন্তে দুদক

অক্টোবর ২১, ২০১৯ - ৫:২০ অপরাহ্ণ

মোঃ নাজমুল ইসলাম তাজ যশোর জেলা প্রতিনিধি: সরকারি বরাদ্ধের অর্থ আত্মসাতে পেতে উঠেছে যশোর জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের কতিপয় কর্মকর্তা ও তার সহযোগীরা। প্রতিবছর সরকারি বরাদ্ধ অর্থ আত্মসাতের জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। অর্থ আত্মসাতের খবরে দূর্নীতি দমন কমিশনের একটি টিম অভিযান চালিয়েছে বলে খবর ফাঁস হয়েছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন, যশোর জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের অধীনে জেলার অবহেলিত হিজড়া ও দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে নিজেদের পায়ে দাঁড়ানোর টার্গেট নিয়ে সরকার প্রতিবছর বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশিক্ষনের আয়োজন করেন। সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালকের তদারকিতে হিজড়া ও দলিত হরিজন গোষ্ঠিরদের প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়। ৫০ জন হিজড়াদের প্রতিদিন ৫শ’ টাকা হারে ২৫ হাজার টাকা ব্যয়সহ ৫০ দিনের প্রশিক্ষন বাবদ সরকারের ব্যয় হয় ১২লাখ ৫০ হাজার টাকা।

তেমনই দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের একই প্রশিক্ষন বাবদ সরকারের ব্যয় হয় ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকা। বিগত ৫ বছর যাবত সরকার জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে সরকারের ব্যয় হয়েছে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা। সরকারের এই টাকা আসলে কাজে এসেছে নাকি তছরুপ হয়েছে এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সমাজসেবা কার্যালয়ের জেলা অফিসে। আর এই দূর্নীতির সাথে খোদ জড়িত যিনি উপ-পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি ও তার দূর্নীতির সহযোগী হিসেবে অফিস সহকারী ব্যক্তিটি।

এ ব্যাপারে জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক অসিত কুমার সাহার মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিকদের সাথে সাক্ষাত দিতে নারাজ। আর এ ব্যাপারে দূর্নীতির সহযোগী অফিস সহকারী মোঃ শওকত আলীর কাছে প্রশিক্ষনের ব্যাপারে তথ্য চাওয়া হলে তিনি উপ-পরিচালকের দোহায় দিয়ে এড়িয়ে যান। বিষয়টি রহস্যর জট বেঁেধছে।

আসলে তদন্তর প্রয়োজন বিগত ৫ বছর যাবত যশোর সমাজ সেবা কার্যালয়ের অধীনে সরকারের কোটি কোট টাকা ব্যয়ে হিজড়া ও দলিত হরিজন সম্প্রদায়ের কাদেরকে প্রশিক্ষন দেওয়া হয়েছে। কাগজ কলমে বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে অফিস সহকারী মোঃ শওকত আলীর মাধ্যমে দু’জনের মিলে ভাগ বাটোয়ারা করেছে সরকারের অর্থ। যে অর্থ দিয়ে অফিস সহকারী করেছেন বিশাল বহুল বাড়ি ও অর্থ বৃত্ত। তাছাড়া বেরিয়ে এসেছে অজানা কাহিনী। এ ব্যাপারে দূর্নীতি দমন কমিশনের হস্তক্ষেপে এই দূর্নীতির অনুসন্ধ্যান মিলবে অচিরেই।

সূত্রগুলো জানিয়েছেন,যশোর জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের অধীনে প্রতিবছর হিজড়া ও দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা বাবদ সরকার মোটা অংকের অর্থ ব্যয় করেন। মাথাপিছু ৫০ জন হিজড়া ও ৫০ জন দলিত হরিজনদের দৈনিক ৫শ’ টাকা হারে ৫০ দিনের প্রশিক্ষনের সুযোগ রয়েছে। হিজড়াদের বিউটি পার্লার ও দর্জি আর দলিত হরিজন ব্যক্তিদের কম্পিউটার ও দর্জি প্রশিক্ষন দেয়া হয়। সূত্রগুলো বলেছে, আলাদা ভেন্যুতে হিজড়া ও দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা রয়েছে।

একজন প্রশিক্ষনকারীর পিছনে দৈনিক সম্মানী ৫শ’ টাকার পাশাপাশি সকালের নাস্তা,দুপুরের খাবার ও বিকালের চা দেওয়ার কথা রয়েছে। দুই সম্প্রদায়ের প্রশিক্ষনের ভেন্যু ভাড়া করার বরাদ্ধ থাকলেও এখানে উপ-পরিচালকের নির্দেশে অফিস সহকারী মোঃ শওকত হোসেন র্দীঘ ৫ বছর যাবত সরকারী শিশু পরিবারে হিজড়াদের ও দলিত হরিজন সম্প্রদায়ীদের শহর সমাজ সেবা কম্পিউটার প্রশিক্ষনের হলরুমে প্রশিক্ষনের ভেন্যু করেন। অথচ এই সরকারি অফিস দু’টির বরাদ্ধকৃত ভাড়া কোথায় যায়? সূত্রগুলো বলেছেন,বিগত ২০১৪/১৫ অর্থ বছর হতে যশোর সমাজ সেবা অফিসে অর্থ বিভাগে দায়িত্ব পালন করছেন অফিস সহকারী (অফিস সহায়ক) মোঃ শওকত আলী। প্রতি বছর বরাদ্ধের টাকা ব্যয়ভার করেন তিনি নিজেই।

বিগত ৫ বছর যাবত প্রতিবছর ৫০ জন হিজড়াদের বিউটি পার্লার ও ৫০ জন দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের নামে বরাদ্ধ থাকলেও প্রশিক্ষনের জন্য সংগ্রহের তালিকায় থাকেন কথনও ২৫ থেকে ৩০ জন। বাকীদের টাকা বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে মোঃ শওকত আলী কর্তার সহযোগীতায় উত্তোলন করে থাকেন বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। মোঃ শওকত আলীর এই দূর্নীতির সাথে ইতিপূর্বে রাশেদ আলী নামে একজন পিয়ন। উক্ত ব্যক্তি বিগত ২ বছর আগে অবসরে যান। সুত্রটি দাবি করেছেন,রাশেদ আলী অবসরে যাওয়ার পর মোঃ শওকত আলী তৎকালীন সময়ে রাশেদের জায়গায় মোছাঃ মুসলিমা নামে একজন মহিলা পিয়নকে বদলি করে আনেন।

পরবর্তীতে অনৈতিক কর্মকান্ডে শওকত আলী জড়িয়ে পড়লে অফিসের সকলে দেখে ফেলায় উক্ত মহিলাকে জেলা কার্যালয় থেকে অন্যত্র বদলী করে দেয়া হয়। সেখানে মিজান নামে অপর একজন পিয়নকে বদলী করে আনেন শওকত আলী। শওকত আলী মিজানের উপর ভরসা না পেয়ে সে পুলেরহাট শিশু জেলখানা থেকে সাজ্জাদ নামে একজন গার্ডকে মৌখিকভাবে অত্র অফিসের যাবতীয় হিসাব রক্ষকের দায়িত্ব পালন করাচ্ছেন। সূত্রগুলো আরো জানিয়েছেন,হিজড়া ও দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের নামে বরাদ্ধকৃত অর্থ ব্যয়ের দুর্নীতির আভাস পেয়ে গত ২৫ সেপ্টেম্বর দুদকের ৩ জন কর্মকর্তা হঠাৎ জেলা সমাজ সেবা অফিসের উপ-পরিচালক কার্যালয়ে হাজির হন।

তারা কর্মকর্তাদের নিয়ে শিশু পরিবার অফিসে হিজড়াদের প্রশিক্ষনের স্থানে যান তদন্ত করতে। সেখান থেকে শহর সমাজ সেবা কার্যালয়ে দলিত হরিজন গোষ্ঠিদের প্রশিক্ষনের কর্মকান্ড সরেজমিনে দেখতে যান। তারা প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা ও উপস্থিতি দেখেন সরেজমিনে।সূত্রগুলো আরো বলেছেন,শহর সমাজ সেবা কার্যালয়ে হরিজন ও দলিতদের ৫০দিন প্রশিক্ষন দিলে এই প্রতিষ্ঠানের ১শ’ ৫০জন কম্পিউটার ছাত্র-ছাত্রীরা যারা নিয়মিত মাসিক বেতনে ৬ মাসের কারিগরী শিক্ষা বোর্ডের অধিনে প্রশিক্ষন নিচ্ছেন তারা পড়েছে দারুন সমস্যায়।

যশোর জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ে সরকারি বরাদ্ধকৃত অর্থ বিভিন্ন কৌশল নিয়ে পকেটস্থ করার হাত থেকে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোরের বিভিন্ন সচেতন নাগরিক সমাজ।

আপনার মতামত জানানঃ