ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   অতিলোভী ব্যবসায়ীর কারণে সমাজ ও দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে

অতিলোভী ব্যবসায়ীর কারণে সমাজ ও দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে

October 20, 2016 - 3:48 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘গুটিকয়েক অতিলোভী ব্যবসায়ীর কারণে সমাজ ও দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, ইমেজ ক্ষুণ্ণ হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বিএসটিআইয়ের প্রধান কার্যালয়ের মিলনায়তনে ৪৭তম বিশ্ব মান দিবস উপলক্ষে বিএসটিআই আয়োজিত ‘মান আস্থা সৃষ্টি করে’শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

অতি মুনাফার মানসিকতা পরিহার করতে ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আমির হোসেন আমু বলেন, ‘ব্যবসায়ীদের অতি মুনাফার মানসিকতা থেকে বেরিয়ে এসে পণ্য মানের বিষয়ে সচেতন হতে হবে। কারণ, প্রতিটা ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এরই সাথে পাল্লা দিয়ে পণ্য মানের বিষয়ে বিএসটিআইকে যেমন তার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে, তেমনই ব্যবসায়ী সমাজকেও তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। বিএসটিআই যে মানের ওপর ভিত্তি করে মান সনদ প্রদান করে, পরবর্তীতে ব্যবসায়ীদের সেই মান বজায় রাখতে হবে।’

শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার আইন প্রয়োগ করে বাধ্য করতে চায় না। সরকার চায় সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পণ্যের মান ঠিক রাখতে। বিএসটিআইকেও অনুধাবন করতে হবে। অন্যান্য সরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ে তাদের কাজের গুরুত্ব অনেক বেশি। বিএসটিআইয়ের ওপর জনস্বাস্থ্যসহ ব্যবসা-বাণিজ্য অনেক কিছু নির্ভর করছে।’

শিল্প মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া বলেন, ‘বিএসটিআই ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক অ্যাক্রেডিটেশন সংস্থা থেকে অ্যাক্রেডিটেশন সনদ অর্জন করেছে। এর ফলে বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্যের মান সনদ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পাচ্ছে। বিদেশে রপ্তানি বেড়েছে। রপ্তানির পরিমাণ আরো বাড়াতে হলে ব্যবসায়ীদেরকে উৎপাদিত পণ্যের মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীত করতে হবে।’

এ ছাড়া শিল্প-কারখানায় আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি ও প্যারামিটার অনুসরণ করে পণ্য উৎপাদন করতে হবে। এটা করতে পারলে ব্যবসা-বাণিজ্যে আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশ আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবে।

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম বলেন, ব্যবসার প্রসারে আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করার কোনো বিকল্প নেই। ব্যবসা-বাণিজ্যে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বিনিয়োগকারী এবং আমদানিকারকদের কাছে বাংলাদেশ এখন অনেক নিরাপদ হিসেবে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, দেশীয় পণ্যের মানের পাশাপাশি বিদেশ থেকে যেসব পণ্য আসছে, সেসব পণ্যের মানের বিষয়েও বিএসটিআইকে নজর দিতে হবে। বাংলাদেশে যাতে বিদেশি অচল, অগ্রহণযোগ্য ও নিম্নমানের পণ্য না প্রবেশ করতে পারে, সে বিষয়ে বিএসটিআই, আমদানিকারকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে বিএসটিআইএর মহাপরিচালক ইকরামুল হক সংস্থার বিভিন্ন অর্জন এবং অগ্রগতির বিষয় তুলে ধরে বলেন, ইতিমধ্যে বিএসটিআইয়ের কয়েকটি ল্যবরেটরি, প্রোডাক্টস সার্টিফিকেশন সিস্টেম এবং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সার্টিফিকেশন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছে।

এ সময় তিনি পণ্যের গুণগতমান বজায় রেখে পণ্য উৎপাদনের জন্য শিল্প উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান। একই সঙ্গে সাধারণ জনগণকে সচেতন এবং গণমাধ্যমকে আরো কার্যকরী ভূমিকা পালনেরও আহ্বান জানান বিএসটিআইএর মহাপরিচালক।

আপনার মতামত জানানঃ